জাতীয়

খুলনা বিদ্যুৎকেন্দ্রে ৮৫ চীনা নাগরিক করোনায় আক্রান্ত

খুলনা বিদ্যুৎকেন্দ্রের অভ্যন্তরে নির্মিতব্য ‘৩৩০ মেগাওয়াট ডুয়েল ফুয়েল কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্ল্যান্ট’প্রকল্পে কর্মরত ৮৫ চীনা নাগরিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এই ৮৫ জনের মধ্যে গত ১৮ মে একসঙ্গে ৪৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। বাকিরা গত এক মাসে বিভিন্ন সময়ে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ২২ জনের দ্বিতীয় দফার নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন নেগেটিভ এসেছে। আর বাকি ৬৩ জন চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এমতাবস্থায় করোনা সংক্রমণ নিয়ে প্ল্যান্টের সবার মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) খুলনা বিভাগীয় সমন্বয়ক গত বৃহস্পতিবার প্রকল্প পরিদর্শন করেছেন।

জানা যায়, নগরের খালিশপুরে ৩৩০ মেগাওয়াট ডুয়েল ফুয়েল কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্ল্যান্টে প্রায় ১৮৫ জন চীনা নাগরিক কাজ করছেন। এই প্রকল্পে দৈনিক ভিত্তিতে আরও ৫০০-৬০০ শ্রমিক কাজ করেন। এছাড়া সহস্রাধিক শ্রমিক প্রতিদিন এই প্রকল্পে অস্থায়ীভাবে বিভিন্ন কাজে যাতায়াত করেন। গত এক মাসে এখানে মোট ৮৫ জন চীনা নাগরিকের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে শুধু ১৮ মে ৪৮ জনের করোনা ধরা পড়ে। ওই দিন মোট ৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল।

পাওয়ার প্লান্টের ডেপুটি প্রজেক্ট ডিরেক্টর জাহিদ হোসেন বলেন, ‘গত এক মাসে (১৮ এপ্রিল থেকে ১৮ মে) প্রজেক্টে কর্মরত ৮৫ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ২২ জনের ইতিমধ্যে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে। এখনও ৬৩ জন আক্রান্ত রোগী আছে।’ তবে তিনি দাবি করেন, আক্রান্তরা নিজস্ব হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন। তারা বিদেশি নাগরিক, এমনিতেই স্থানীয়দের সঙ্গে তেমন মেলামেশা করেন না। আক্রান্ত কেউ কাজে অংশ নেয়নি। তারা ইতিমধ্যে সবাই করোনা টিকা নিয়েছেন।

এ বিষয়ে খুলনার সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, ‘বিদ্যুৎ প্রজেক্টে কর্মরত এত বড় সংখ্যক চীনা নাগরিক কেন করোনা আক্রান্ত হলো- বিষয়টি দেখার জন্য আইইডিসিআর’র খুলনা বিভাগীয় কো-অর্ডিনেটর তদন্ত করছেন। তিনিই বিষয়টি ভালো বলতে পারবেন।’

রোগতত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) খুলনা বিভাগীয় কো-অর্ডিনেটর ডা. হাসনাইন শেখ জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিনি গত বৃহস্পতিবার প্রজেক্টে পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানকার চীনা কমিউনিটিতে ঢুকতে দেওয়া হয় না। যা কথা বলার তা ফোনেই বলতে হয়েছে। তাদের সবার করোনার টিকা দেওয়া আছে। তাদের নিজস্ব চিকিৎসকও রয়েছে। তবে আক্রান্ত চীনারা কাজে অংশ নিচ্ছেন কিনা বিষয়টি যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button